বাংলাদেশেও প্রভাব বাড়ছে ওমিক্রন এর

বাংলাদেশেও প্রভাব বাড়ছে ওমিক্রন এর

প্রায় সপ্তাহ তিন আগে বাংলাদেশ এর করোনার নতুন ধরন অমিক্রন এর সংক্রমণ ছিল সীমিত পরিসরে, সুনির্দিষ্ট কিছু এলাকায়। সংক্রমণ এর এমন পর্যায় গুচ্ছ সংক্রমণ (ক্লাস্টার ট্রান্সমিশন) নামেই পরিচিত। এখন ঢাকার পাশাপাশি ঢাকা এর বাইরেও অমিক্রন শনাক্ত হচ্ছে।

 

এরই মধ্যে সংক্রমণ পরিস্থিতি এর আরও অবনতি হয়েছে। দুই সপ্তাহ ধরে দৈনিক শনাক্ত এবং পরীক্ষার বিপরীতে রোগী শনাক্ত এর হার বাড়ছে। পাঁচ দিনের ব্যবধানে রোগী শনাক্ত তিন গুণ বেড়ে গিয়েছে। পরিস্থিতি দেখেই জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনার অমিক্রন ধরনের সামাজিক সংক্রমণ (কমিউনিটি ট্রান্সমিশন) হয়েছে। সারা দেশে সংক্রমণ ছড়িয়ে পরতে সময় নিবে না।

বিজ্ঞাপন

 

গত ২৪ ঘণ্টাতে (গত বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে আজ শুক্রবার সকাল ৮টা পর্যন্ত) ৪ হাজার ৩৭৮ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছেন। পরীক্ষার বিপরীতে রোগী শনাক্ত এর হার দাঁড়িয়েছে ১৪ দশমিক ৬৬ শতাংশ। প্রায় সাড়ে চার মাসের মধ্যে এটি সর্বোচ্চ দৈনিক শনাক্ত এবং শনাক্ত এর হারের রেকর্ড।

 

করোনা এর সংক্রমণ পরিস্থিতি নিয়ে আজ এই প্রতিবেদক তিনজন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ এর সঙ্গে কথা বলেন। তাঁরা সরকার গঠিত করোনাসংশ্লিষ্ট তিনটি পৃথক কমিটির মেম্বার। তাঁদের মতে, গত দুই সপ্তাহের সংক্রমণ পরিস্থিতি দেশে করোনা সংক্রমণ এর তৃতীয় ঢেউ শুরুর ইঙ্গিত দিচ্ছে। আগামী দুই সপ্তাহ সংক্রমণ মোকাবিলাতে সতর্ক না হলে এই ঢেউ এ সংক্রমণ অনেক বাড়বে বলে তাঁদের আশঙ্কা।

 

করোনা এর নমুনা পরীক্ষা সম্প্রসারণ নীতিমালা কমিটির প্রধান ছিলেন অধ্যাপক লিয়াকত আলী। এই চিকিৎসা বিজ্ঞানী প্রথম আলোকে জানায়, পারিপার্শ্বিকতা ও অন্যান্য দেশের অভিজ্ঞতা বলছে, বর্তমান সংক্রমণ বৃদ্ধি অমিক্রনের সামাজিক সংক্রমণের কারণেই। তবে এখনো সব জায়গায় এই সংক্রমণ ছড়াতে পারেনি। পরিস্থিতি বলছে, দেশে সংক্রমণ এর তৃতীয় ঢেউ শুরু হচ্ছে।

 

 

গত ৯ ডিসেম্বর জিম্বাবুয়ে ফেরত বাংলাদেশ এর নারী ক্রিকেট দলের দুই সদস্য এর প্রথম অমিক্রনে আক্রান্তের খবর জানা যায়। এখন পর্যন্ত জিনোম সিকোয়েন্সিং করে দেশে ৩৩ জন করোনার অমিক্রন ধরনে সংক্রমিত হয়েছেন বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দেশে করোনার জিনোম সিকোয়েন্স এর কাজটি এখন পর্যন্ত সুসংগঠিত ভাবে করা হচ্ছে না। তাই করোনার কোন ধরন বেশি ছড়াচ্ছে, সে তথ্য পাওয়া যাচ্ছে না।

 

ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাস এর আন্তর্জাতিক তথ্যভান্ডার জার্মানির দ্য গ্লোবাল ইনিশিয়েটিভ অন শেয়ারিং অল ইনফ্লুয়েঞ্জা ডেটার (জিআইএসএআইডি) তথ্য অনুযায়ী, দেশে অমিক্রনে সংক্রমিত ৩৩ জনের মধ্যে রাজধানীর বাসাবো এর বাসিন্দা ৪ জন ও মহাখালী এর ৬ জন। ২০ জন ঢাকার বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দা। তাঁদের অবস্থান সম্পর্কে নির্দিষ্ট করে আর কিছু জানা যাচ্ছেনা। আর তিনজন যশোর এর।

 

স্বাস্থ্য বিভাগ দেশে ৫০০ করোনা শনাক্ত রোগীর মধ্যে মাত্র ১ জনের নমুনার জিন বিশ্লেষণ করে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এত কম সংখ্যক নমুনা বিশ্লেষণ এর মাধ্যমে কোন ধরন কী পরিমাণে ছড়াচ্ছে, তা বলা মুশকিল। তবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এর মুখপাত্র মো. রোবেদ আমিন গত বুধবার বলেছিলেন, অমিক্রন এর পাশাপাশি ডেলটা ধরন—দুটিই বর্তমানে অবস্থান করছে। সংক্রমণ হঠাৎ মাত্রাতিরিক্ত হয়ে যাওয়াতে ধরে নিতে হবে করোনার নতুন যে ধরন (অমিক্রন), তারই সংক্রমণ বেশি হয়ে গেছে।

 

করোনার ডেলটা ধরন এর চেয়ে অমিক্রনে আক্রান্ত রোগীর অসুস্থতা তুলনামূলক কম হলেও অমিক্রন বেশি সংক্রামক। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) বলছে, যাঁরা টিকা নেননি, তাঁদের জন্য অমিক্রন ধরন বিপজ্জনক। অন্যান্য দেশের অভিজ্ঞতা বলে, অমিক্রন এর পুরুষ এর চেয়ে নারীর আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যা বেশি। জিআইএসএআইডি এর তথ্য অনুযায়ী, দেশে এ পর্যন্ত অমিক্রনে সংক্রমিত ৩৩ জনের মধ্যে ২১ জনই নারী। বাকি ১২ জন পুরুষ।

 

২০২০ সালের মার্চে বাংলাদেশ এর প্রথম করোনা এর প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। ওই বছরের জুন-জুলাই মাসে করোনা সংক্রমণের প্রথম ঢেউ ছিল বেশ তীব্র। গত বছরের মার্চে শুরু হয় করোনার দ্বিতীয় ঢেউ। করোনার ডেলটা ধরনের সংক্রমণে গত বছরের মাঝামাঝি দেশে করোনায় মৃত্যু, রোগী শনাক্ত ও শনাক্ত এর হার বেড়ে যায়। আগস্ট থেকে সংক্রমণ কমতে থাকে। তবে দুই সপ্তাহ ধরে আবার সংক্রমণে উল্লম্ফন দেখা যাচ্ছে।

 

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এর পাবলিক হেলথ অ্যাডভাইজারি কমিটির সদস্য আবু জামিল ফয়সাল প্রথম আলোকে বলেন, বর্তমান সময়ে অমিক্রন ছাড়া করোনার অন্য কোনো ধরনের মাধ্যমে এত দ্রুত সংক্রমণ বৃদ্ধি সম্ভব নয়। দেশের করোনার তৃতীয় ঢেউ শুরু হয়েছে, তবে এর চূড়ায় পৌঁছাতে আরও কিছুদিন সময় লাগবে।

 

জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা জানায়, অমিক্রনের উপসর্গ ও তীব্রতা কম হওয়ায় অনেকে সংক্রমিত হলেও নমুনা পরীক্ষা করাচ্ছেন না। স্বাস্থ্যবিধি মানা এর ক্ষেত্রেও জনগণের মধ্যে উদাসীনতা রয়েছে আগের মতোই। স্বাস্থ্য বিভাগ, সিটি করপোরেশনসহ সরকারি সংস্থাগুলো এখনো সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে সক্রিয়ভাবে মাঠে নামেনি।

 

করোনা বিষয়ক জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সদস্য এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) সাবেক উপাচার্য নজরুল ইসলাম প্রথম আলোকে জানায়, যাঁদেরই সংক্রমণ শনাক্ত হচ্ছে, তাঁদেরই অন্তত ২৫ শতাংশের জিনোম সিকোয়েন্স করা গেলে অমিক্রনের পরিস্থিতি বোঝা যেত। শনাক্ত রোগীদের জিনোম সিকোয়েন্স হচ্ছে কম। যাদের কাজ সিকোয়েন্স করা, তারা তাদের কাজ করছে না। সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো সবকিছুই করছে ঢিমেতালে। তাই দ্রুত রোগী বাড়তে থাকবে।

Comment Here